রক্তদানে এবং অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দানে সচেতনতা

যেখানে রক্ত ব্যবসা বন্ধ হয়না সেখানে মানুষের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নিয়ে ব্যবসা বন্ধ হবে কেমন করে?

রক্ত ব্যবসায়ঃ
ফেসবুকে মানে অনলাইন জগতে রক্ত ম্যানেজ করার কাজ শুরু হবার আগে রক্ত ব্যবসা বা দালালি হাসপাতাল এবং ব্লাড ব্যাংকেই সীমাবন্ধ ছিল। প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে দালালের ধরনেরও বাড়ছে।
১. কেউ বিকাশে টাকা নিচ্ছে।
২. কেউ রক্তদাতা ম্যানেজ করে দেবার জন্য সার্ভিস চার্জ নিচ্ছে,।
৩. কেউ রক্তদাতার অজান্তেই রোগির লোকের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছে।
৪. কেউ ডোনার নিয়ে গিয়ে অতিরিক্ত যাতায়াত খরচ। মসজিদের নামে টাকা নিচ্ছে,
৫. কেউ কমিশনের উপর ভিত্তি করে রক্তদাতা সরবরাহ করছে।
৬. কেউ স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের রক্তদানের কার্যক্রম দেখি এবং স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের তালিকা দেখিয়ে অনুদানও নিচ্ছে।

নিজেদের সচেতনতার অভাবে এবং অন্ধ ভক্তির জন্য নাকের ডগায় রক্তের দালালরা দালালি করেই যাচ্ছে। যেন কিছু বলার নাই কবি নিরব।

এটা তো মাত্র ৫০০/১০০০/৫০০০০ টাকার খেলা কিন্তু এর চাইতে বড় খেলা আছে সেটা হল মানুষের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ। যেখানে লাখ লাখ টাকার খেলা হয়। আপনি কি জানেন কালো বাজারে মানুষের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ এর দাম কেমন?

১. কিডনি : কালোবাজারে সবথেকে বেশি চাহিদা কিডনির। জীবিত মানুষের কিডনি হলে দাম মোটামুটি ১,৩৪,১৯,২৯০ টাকা। মৃত মানুষের কিডনি হলে সেই দাম ১০,০৬,৪৪৬ টাকা – ১,৬৭,৭৪,১১২ টাকা।
২. লিভার : ১,০৭,৩৫,৪৩২ টাকা
৩. চোখ : ১,০২,৩২২ টাকা।
৪. বোন ম্যারো : ১৫,৪৩,২১৮ টাকা।
৫. হৃৎপিণ্ড : ৭৯,৮৪,৪৭৭ টাকা।
৬. গল ব্লাডার : ৮১,৭৯০ টাকা
৭. ডিম্বাণু : মোটামুটি দাম ৮,৩৮,৭০৫ টাকা।
৮. রক্ত : ১,৬৭৭ – ২২,৮১২ টাকা।
৯. করোনারি আর্টারি : ১,০২,৩২২ টাকা
১০. ক্ষুদ্রান্ত্র : ১,৬৯,০১৫ টাকা।

সূত্রঃ কালেরকন্ঠ

যেখানে আপনার ৪৫০ মিলি রক্ত বিক্রি হচ্ছে আপনারে মামু বানিয়ে এবং সেটা আপনার জীবত থাকা অবস্তায় সেখানে আপনার মরণোত্তর অঙ্গ-প্রত্যঙ্গদান বিনা মূল্যে (সংরক্ষণ খরচ বাদে) কোন রোগী পাবে এর নিশ্চয়তা কে দিবে। আরে ভাই এখানে তো লাখ টাকা খেলা। চায়ানা গ্যারান্টি নিয়ে কি করবেন?

তার মানে আমি বলছি না যে আপনি কোন অসহায় মানুষকে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দান করিয়েন না ! দান করুন কিন্তু সেটা আপনি সিলেক্ট করুন জীবিত থাকা অবস্থায়। জীবন দশায় না পাইলে নিজের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সাথে করেই নিয়ে যান। তবু আপনার দানকে ব্যবসায় পরিনত হতে দিয়েন না।

নিজে সচেতন হন অন্য কে সচেতন করুন। আপনার আমার অসচেনতার জন্যই মুখোশধারীরা সুযোগ পায়। তাই আপনার ঘুমন্ত বিবেক কে জাগ্রত করুন, সচেতন হন, পরিবর্তন নিজে থেকেই চলে আসবে।

বিঃদ্রঃ ধর্মীয় দৃষ্টিতে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দান সঠিক কি না এ ব্যাপারে আমার সঠিক জানা নেই, ভিন্ন ভিন্ন মতামত পাইছি।

যদি মনে করেন এই লেখা পরে কেউ রক্তদানে এবং অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দানে সচেতন হবে তবে নিজ নিজ টাইম লাইনে দিন।

কারন একমাত্র সচেতনতাই পারে মানবতার লেবাসধারী দালালদের রুখতে।

পাশাপাশি আপনার আশেপাশের মানুষদের সচেনতার সহিত রক্তদানে এবং অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দানে উৎসাহিত করুন।

আমাদের কিছু কথা…

সংগঠন একটি সামাজিক প্রক্রিয়া। যেখানে একদল মানুষ একটি সাংগাঠনিক কাঠামোর অন্তভুক্ত হয়ে নিদিষ্ট কিছু লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন  সর্বদা নিরন্তন। মানবিক আবেদন এর ব্যাতিক্রম নয়।মানবিক আবেদন ও  একটি অলাভ জনক মানবসেবা ও মানব উন্নয়ন মূলক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। মানুষ ও মানবতার সেবায় অঙ্গীকারবদ্ধ।

বাংলাদেশ ইনফরমেশন…

আমাদের অনুসরণ করুন…